হেডলাইন সোর্স অব এগ্রো, আধুনিক কৃষিতে এক নতুন দিগন্তের উদ্ভাস।

হোম / জৈব সার

সরিষার খৈল | High Quality Mustard cake-1 KG

সরিষার,খৈল,|,High,Quality,Mustard,cake-1,KGসরিষার খৈল, সরিষার খৈল এর উপকারিতা, সরিষার খৈল এর দাম, সরিষার খৈল এর ব্যবহার, সরিষার খৈল কি, সরিষার খৈল গুড়ো
65 ৳    56 ৳
স্টকে আছে

সরিষার খৈল | High Quality Mustard cake-1 KG

Description

সরিষার খৈলকে জৈব সার রুপে ব্যবহার করা যায়। সরিষা থেকে তেল বের করার পর অবশিষ্টাংশ খৈল বলে পরিচিত। গুল্ম উদ্ভিদ  তথা ফল, ফুল, এবং সবজি গাছের জন্য সরিষার খৈল ; খাদ্য , সার এবং প্রভাবক হিসাবে অসাধারণ কাজ করে। ইংরেজিতে সরিষার খৈলকে Mustard Cake বলে। গাছের প্রয়োজনীয় ও প্রধান পুষ্টি উপাদানগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে নাইট্রোজেন এবং ফসফেট। গাছের এই গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদানের যোগানের জন্য সরিষার খৈল দিয়ে তৈরী সার খুবই উৎকৃষ্ট মানের।

কার্যকারীতা:

সরিষা ব্যতীত সরিষার খৈলে অন্য  কোন উপাদান থাকে না তাই এটি গাছ ও মাটির জন্য খুবই উপকারী । এটি দুইভাবে ব্যবহার করা যায়; সরাসরি মাটির সাথে মিশিয়ে অথবা তরল করে জৈব সার হিসাবে।

  • ফুল, ফল এবং গাছের স্বাভাবিক বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় নাইট্রোজেন, পটাশিয়াম এবং বিভিন্ন ম্যাক্রো ও মাইক্রো উপাদানের যোগান দেয়। 
  • পরিবেশ বান্ধব একটি প্রাকৃতিক সার।
  • গাছের জন্য প্রয়োজনীয় ফসফরাসের সরবরাহ করে।

ব্যবহারবিধি:

দুই ভাবে সরিষার খৈলকে ব্যবহার করা যায়।

সরাসরি ব্যবহার: প্রথমে সরিষার খৈলকে ভেঙ্গে ভালভাবে গুড়ো করে নিতে হবে। তারপর গাছের গোড়া থেকে অর্ধ মিটার দূরে প্রয়োগ করতে হবে।

তরলীকরণ করে: তরল আকারে তৈরী জৈব সার ব্যবহার সহজ এবং বেশ কার্যকরী। এই সার তৈরী করার উপায় এবং ব্যবহার প্রনালী নিচে তুলে ধরা হলো:

প্রয়োজনীয় উপকরণ:
  • সরিষার খৈল
  • ঢাকনাসহ প্লাষ্টিকের বালতি
  • নাড়ানোর জন্য কাঠি
  • পানি
  • সামান্য ইউরিয়া সার (না দিলেও চলবে)
ব্যবহার পদ্ধতি:
তৈরীকৃত সরিষার খৈলের তরল জৈব সার ব্যবহারের জন্য প্রথমে বেশ ভালোভাবে নাড়িয়ে এক লিটার তরল সারের সাথে আরো ১০-১২ লিটার পানি যোগ করতে হবে। এবার মিশ্রনটি ভালো ভাবে নাড়িয়ে টবের মাটি ভিজিয়ে দিতে হবে। অনেক বেশি দিয়ে ভাষিয়ে দেয়ার প্রয়োজন নেই। মাটি ভালো ভাবে ভিজিয়ে দেয়াই যথেষ্ট। এভাবে ১৫-২০ দিন পর পর গাছের চাহিদা বুঝে সারটি প্রয়োগ করতে হবে। সারটি দেওয়ার দুই/তিন দিন পর টবের মাটি আলতো করে খুঁচিয়ে দেয়া ভালো। আরেকটি বিষয় সার দেয়ার কাজটি পরন্ত বিকালে করতে হবে। দুপুরের রোদে করা যাবেনা।
সংরক্ষণ পদ্ধতি:
ব্যবহারের পর যদি তরল সার থেকে যায় তাহলে বালতির ঢাকনা লাগিয়ে রেখে দিতে হবে। তবে তিন মাসের বেশি সময় সংরক্ষন না করাই ভালো। এতে এসিডের মাত্রা বেড়ে গাছের ক্ষতি হবার সম্ভাবনা থাকে। সবচেয়ে ভালো হয় যাদি প্রয়োজনমত সার তৈরী করে একবারেই ব্যবহার করা যায়।
আরো কিছু প্রাকৃতিক সার:

কৃষি সম্পর্কিত তথ্য ও পরামর্শ পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যনেল সাবস্ক্রাইব করুন:  Source Of Agro (ইউটিউব চ্যানেল) এবং ভিজিট করুন আমাদের ফেসবুক পেজ: Source Of Agro (ফেসবুক পেজ)

অথবা কল করুন : 01719-404740  নাম্বার এ





ফোনে অর্ডার দিতে কল করুন
09613100150



*ঢাকা সিটির ভিতরে ডেলিভারি চার্জ ১২০ টাকা (পণ্যের ওজন ১ কেজি হলে)


*ঢাকা সিটির বাহিরে ডেলিভারি চার্জ ১৫০ টাকা (পণ্যের ওজন ১ কেজি হলে)


১. শুধুমাত্র ২৫০০/- টাকার বেশি মূল্যের ক্ষেত্রে ৫০০/- বা (৫%-১০০%) টাকা বুকিং হিসাবে অগ্রিম প্রদান করতে হবে বিকাশ / নগদ / রকেট এর মাধ্যমে।

২. সারা বাংলাদেশে (২৫০০/-পযন্ত) ফুল ক্যাশ অন ডেলিভারীতে পন্য অর্ডার করতে পারবেন। (হোম ডেলিভারী)

৩ .আমরা সারা বাংলাদেশ হোম ডেলিভারীতে পন্য ডেলিভারী করি সুতরাং পন্য গ্রহন করার সময় চেক করে নিতে পারবেন।

৪ .বেশি ওজন বা বড় মেশিন হোম ডেলিভারি করা সম্ভব না, সেক্ষেত্রে নিকটস্থ কুরিয়ার অফিস থেকে সংগ্রহ করতে হবে।